কী কেন কীভাবে? (২য় খণ্ড)

By (author) সামিহা সুলতানা অনন্যা Price: 150 TK

কোনো ঘটনার বিজ্ঞানসম্মত কারণ জানতে পারলে সেই ঘটনার রহস্য সমাধান করা সম্ভব। প্রশ্ন করা এবং তার উত্তর খোঁজা ও জানার মধ্যদিয়ে বিজ্ঞানমনস্ক প্রজন্ম গড়ে ওঠে। বিজ্ঞানমনস্কতা আমাদের চারপাশের জগতকে নতুনভাবে দেখতে, যুক্তি দিয়ে বুঝতে সাহায্য করে। ফলে আমাদের জগতের নানা সমস্যার বিজ্ঞানসম্মত সমাধান বের করা সহজ হয়। ছোটবেলা থেকে নানা পরিবেশ-সৃষ্ট চাপের কারণে বিজ্ঞান ও গণিতের প্রতি এক অজানা ভীতি তৈরি হয়। সেটি পাঠ্য বইয়ের পড়া হয়েই থেকে যায়। তাই রাতের অন্ধকারে খালি বাসায় হঠাৎ শব্দ শুনলে, মানুষের ছায়া দেখলে ভূত-ভূত বলেই আমরা চিৎকার দিয়ে উঠি। তা পরীক্ষায় বিজ্ঞানে অ+ পাই আর যা-ই পাই। মনে হয় না যে, কেউ না থাকলে ছায়া দেখার বিজ্ঞাসম্মত কোনো কারণ নেই, তাই নিশ্চয়ই কোনো বস্তুর ছায়া দেখে মানুষের ছায়া মনে হচ্ছে। 

তাই বিজ্ঞানকে পড়ার বিষয় মনে না করে জানার বিষয়, বোঝার বিষয়, জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে কাজে লাগানোর বিষয় মনে করতে হবে। পরীক্ষার জন্য না পড়ে বাস্তবজীবনে কাজে লাগানোর জন্য জানতে হবে। তবেই জীবনের সব প্রতিকূলতা সহজ হয়ে যাবে। নিজ থেকে জানার প্রবণতা, নতুন জ্ঞানকে জীবনে কাজে লাগানোর ইচ্ছা জীবনকে আরো আলোকিত করবে। সাফল্যের মুখোমুখি দাঁড় করাবে। নতুন নতুন বিষয় জানার আগ্রহকে উৎসাহিত করার উদ্দেশ্যেই আমার এই বই। যেটি বিজ্ঞানকে শুধুমাত্র পাঠ্যবই হিসেবে না রেখে বাস্তব জীবনের সাথে যুক্ত করতে সাহায্য করবে।